1. admin@dainikprothomprohor.com : admin : News Desk
আজ জাতীয় পাট দিবস,পাট উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষে বাংলাদেশ - দৈনিক প্রথম প্রহর
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন

আজ জাতীয় পাট দিবস,পাট উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষে বাংলাদেশ

  • প্রকাশিত: সোমবার, ৬ মার্চ, ২০২৩

আজ সোমবার (৬ মার্চ) ‘জাতীয় পাট দিবস’। বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে দিবসটি পালন করবে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়। চলতি বছরে পাট দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘পাট শিল্পের অবদান-স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ’।
বছর পাট দিবসে ১১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কার দেওয়া হবে। এছাড়া ৭টি শুভেচ্ছা স্মারক প্রদান করা হবে পাট সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের।১১টি ক্যাটাগরিতে দেওয়া হবে এই পুরস্কার।

বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী এক সংবাদ সম্মেলনে জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পাটজাত পণ্যকে বর্ষপণ্য-২০২৩ এবং সোনালী আঁশ পাটকে কৃষিপণ্য হিসেবে ঘোষণা করেছেন।

পাট উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষ স্থানে অবস্থান করছে বাংলাদেশ। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) সর্বশেষ স্ট্যাটিস্টিক্যাল বুলেটিন থেকে এ তথ্য জানা গেছে।
আগে এ অবস্থানে ছিলো ভারত। কিন্তু তাদের উৎপাদন কমে যাওয়ায় এ স্থান দখল করে বাংলাদেশ।
তথ্যমতে, পাটসহ বেশ কিছু পণ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ কখনো ভারতে টপকাতে পারেনি। কিন্তু গত কয়েক বছরে ভারতের পাটের উৎপাদন ধারাবাহিকভাবে কমে যায়। ২০২০-২১ অর্থবছরে ভারতে পাটের উৎপাদন ৯ লাখ ৮০ হাজার টন। আর বাংলাদেশের উৎপাদন ছিল ১৪ লাখ ৮ হাজার টন। এর মাধ্যমে ভারতকে টপকে যায় বাংলাদেশ।

বিশ্লেষকরা বলছেন, উৎপাদন বৃদ্ধিতে ঘাতসহিষ্ণু জাত উদ্ভাবন করা গেলে অন্তত ১০ লাখ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ বাড়ানো সম্ভব। একইসঙ্গে কৃষকদের কাছে সব সুবিধা দ্রুত পৌঁছে দিতে হবে। ফলে উৎপাদন ভালো হবে, রফতানি আয়ও বাড়বে।

বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী জানান, পাটের উৎপাদন বাড়াতে সরকার বীজের সংকট মেটানোয় কাজ করছে। আধুনিক কলাকৌশলের বিষয়ে পাটচাষিদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া পাটবীজ উৎপাদনে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে একটি রোডম্যাপও তৈরি করা হয়েছে। আশা করি বাংলাদেশ উন্নত পাটবীজ উৎপাদনে স্বনির্ভর হবে।

রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যমতে, ২০২১-২২ অর্থবছর পাট ও পাটজাত পণ্য রফতানি করে আয় হয়েছিল ১১২ কোটি ৭৭ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার। ২০২২-২৩ অর্থবছরে এ খাত থেকে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের লক্ষ্য ১২৮ কোটি ডলার।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্য বলছে, বাংলাদেশের ইতিহাসে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে সর্বোচ্চ ১ লাখ ৮৭ হাজার ৩০০ একর জমিতে প্রায় ৮৮ লাখ ৯৫ হাজার বেল পাট উৎপাদন হয়েছিল।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
কপিরাইট © ২০২২ দৈনিক প্রথম প্রহর. কম
ডিজাইন ও ডেভেলপ : ডিজিটাল এয়ার